শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কাশ্মীরের জামা মসজিদ বন্ধ করে জুমার নামায পড়তে দেয়নি ভারত জুমার আলোচনায় খতিবদের ডেঙ্গু-গুজব-বন্যা নিয়ে বক্তব্য রাখার আহ্বান ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর মসজিদে গুলি করতে গিয়ে উল্টো ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন সাবেক মার্কিন সেনা! ইন্টারনেট সেবা নিতে চাইলে কোরআনে শপথ নিতে হবে মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে আয়ের একমাত্র অবলম্বন ভ্যানটি চুরি হয় বিমানবন্দরে লাগেজ হারিয়ে গেলে ফিরে পাওয়ার উপায় আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির সাথে হিজরী সন সম্পৃক্ত: চরমোনাই পীর The story of success -Ashraf Ali Sohan চিত্রনায়িকা পরী মণি ও (এডিসি) সাকলায়েনের নতুন ভিডিও ফাঁস, দেখুন গোপালপুরে মসজিদে হামলায় বৃদ্ধ নিহত, সড়ক অবরাধ, আটক দুই কোম্পানীগঞ্জে দিনদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ ৪ দিন পরও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ বানিয়াচংয়ে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের আবিস্কার নিয়ে বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত খুলনায় স্কুল ছাত্রীর নগ্ন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ায় যুবক গ্রেফতার

ইসলাম আক্রান্ত হলে বাংলাদেশ টিকবে না:খেলাফত যুব মজলিসের সভাপতি

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৬২ Time View

বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিসের দশ বছর পূর্তি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ শুক্রবার দুপুর ২টায় রাজধানীর বাইতুল মোকাররমের পশ্চিম লিঙ্করোডে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।সম্মেলনে সভাপতি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিসের সভাপতি মাওলানা মুহাম্মাদ মামুনুল হক ও বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের আমির আল্লামা ইসমাঈল নূরপুরী ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক।সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা মামুনুল হক বলেন, মজলুম মানবতার পক্ষে আমরা আছি।

পৃথিবীর যেখানেই যেকোনো জনপদে যেকোনো জনগোষ্ঠীর কোনো মানুষ নির্যাতনের শিকার হবে তার স্বপক্ষে আমরা বলিষ্ঠভাবে সমর্থণ ও সংহতি ব্যক্ত করতে চাই। কাশ্মীর, সিরিয়া, আরাকানের মুসলমানদের অধিকার ফেরত চাই। বিশেষ করে কাশ্মীরের মুসলমানদের উপর ভারতীয় আধিপত্যবাদের জুলুম নির্যাতন ও কাশ্মীর মুসলমানদের স্বাধীনতা হরণ আমরা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারি না।

কাশ্মীরের মুসলমানদের প্রতি আমরা সংহতি প্রকাশ করছি।তিনি আরও বলেন, ভারতের অযোধ্যায় ৫০০ বছরের পুরনো বাবরি মসজিদের স্থলে রাম মন্দির নির্মাণ চক্রান্ত আমরা কোনোভাবেই বরদাশত করতে পারিনা। আমরা দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করছি, যেকোনো মূল্যে মুসলিম উম্মাহকে সাথে নিয়ে বাবরি মসজিদ পুনরুদ্ধারে ভূমিকা পালন করবো।  আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ার পাশাপাশি মুসলিম বিশ্ব ও জাতির সাথে সহযোগিতা ও সম্পর্ক উন্নয়নের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসন  প্রতিহত করার চেষ্টা চালিয়ে যাব। আমরা দেশ ও দেশের মানুষের বিরুদ্ধে যেকোনো ধরনের চক্রান্ত, অপকৌশল প্রতিহত করার জন্য আমরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।তিনি বলেন, আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার নানামুখী চক্রান্ত চলছে।

সরকার দেশকে বাহ্যিক কিছু উন্নয়নের চমক দেখিয়ে প্রকৃত অর্থে দেশকে সামনের দিকে অগ্রসর করার পরিবর্তে নানাভাবে বাংলাদেশ নামক স্বাধীন রাষ্ট্রটিকে দুর্বল ও পরনির্ভর জাতি হিসেবে পরিণত করছে। সরকার বিচার বিভাগকে ভঙ্গুর মেরুদন্ডহীন একটি বিভাগে পরিণত করেছে। সরকারের আরেকটি বিভাগ প্রশাসন অনৈতিকতার সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে। সব স্তরের স্বজনপ্রীতি দুনীর্তি দলপ্রীতি জেঁকে বসেছে। প্রশাসনকে দিয়ে ৩০ ডিসেম্বরের মধ্যরাতে নির্বাচন করিয়ে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করার কারণে প্রশাসন আজ বেপরোয়া। অনেক ক্ষেত্রে সরকারের নিয়ন্ত্রন তাদের ওপর নেই।

কারণ সরকার তাদেরকে অনৈতিক কাজে ব্যবহার করেছে। সারাদেশে গুম সন্ত্রাস চলছে। নানা অভিযোগে দেশের বিশিষ্টজনদেরকে সাদা পোশাকে তুলে নেওয়া হচ্ছে। অনেকদিন পর আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর কাছে তাদের পাওয়া যাচ্ছে।মাওলানা মামুনুল হক বলেন, দেশে ধর্মনিরপেক্ষতার আড়ালে একটি বিশেষ ধর্ম ও একটি বিশেষ মতাদর্শপন্থীদের প্রশাসনে ব্যাপকভাবে পদায়ন করা হচ্ছে। রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে তারা আনুপাতিক হারের চেয়ে অনেক বেশি সুযোগ পাচ্ছে। এটি মূলত ধর্মনিরপেক্ষতার আড়ালে একটি বিশেষ ধর্মাবলম্বীপন্থীদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠার চেষ্টা।তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষের স্বাধীনভাবে কথা বলা, জনগণের মৌলিক অধিকার ও মিছিল মিটিং করার যতোগুলো জায়গা ছিলো সব বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

একমাত্র জায়গা রয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান। সেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানকে দুই মাস ধরে সরকারি দল দখল করে আছে। আমরা একবছর আগ থেকে আবেদন করেও যথাসময়ে বরাদ্ধ পাইনি। এমনকি দুই দফা তারিখ পিছিয়েও আমাদের সুযোগ দেওয়া হয়নি। ডিসেম্বরর শুরুতে সরকারের কোনো প্রোগ্রাম নেই। তবুও তারা সোহরাওয়ার্দী উদ্যান দখল করে আছে।তিনি বলেন, মানুষের জীবনের মৌলিক জীবন উপকরণ ও দ্রব্য মূল্যের লাগামহীন মূল্য, পেয়াজের দর শুধু বাংলাদেশের ইতিহাস নয় বিশে^র ইতিহাসে রেকর্ড ব্রেক করে এক ভয়াবহ বিপর্যয়ের অবস্থা সৃষ্টি করেছে।

গোটা বাংলাদেশে আজ হাহাকার চলছে। অধিকাংশ নিত্য প্রয়োজনীয় মূল্য মানুষের নাগালের বাইরে। এ অবস্থা চলতে পারে না।তিনি আরও বলেন, আল্লাহ, আল্লাহর রাসুল ও ধর্মের বিরুদ্ধে বিষোদগারের একের পর এক ঘটনা ঘটে চলছে। এর বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রণয়ন একান্ত প্রয়োজনীয়। সরকারের কাছে বারবার এ কথার দাবি জানিয়েও কোনো সুফল এ পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।তিনি সম্মেলন থেকে কর্মসূচি ঘোষণা করে বলেন, জরুরি জীবনোপকরণ ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন উর্দ্ধগতির প্রতিবাদ ও আল্লাহ, আল্লাহর রাসুল এবং ধর্মের বিরুদ্ধে বিষোদগারের জন্য সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে দেশের জেলায় জেলায় সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করছি।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন খেলাফত আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর আল্লামা শাহ আতাউল্লাহ ইবনে হাফেজ্জী, ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল লতীফ নেজামী, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের আমীর মাওলান ঈসা শাহেদী, ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব মুফতী ফয়জুল্লাহ, খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা হাবীবুল্লাহ মিয়াজী, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের সেক্রেটারী জেনারেল ড. মাওলানা এনামুল হক আজাদ।

বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিস ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা রেজাউল করীম ও খুলনা মহানগর সভাপতি মাওলানা শহীদুল ইসলামের সঞ্চালনায় আরও উপস্থিত ছিলেন প্রখ্যাত ওয়ায়েজ মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবী, খেলাফতে ইসলামী বাংলাদেশের আমীর মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী, বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিসের সভাপতি পরিষদ সদস্য মাওলানা আবুল হাসানাত জালালী ও মাওলনা শরীফ সাঈদুর রহমান,

বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা জালালুদ্দীন আহমদ, মাওলানা আতাউল্লাহ আমিন, কওমী ফোরামের সমন্বয়ক মাওলানা সাখাওয়াত হোসাইন রাজী, রাবেতাতুল ওয়ায়েজীনের সভাপতি মাওলানা আব্দুল বাসেত খান, রাবেতাতুল ওয়ায়েজীনের সেক্রেটারি মাওলানা হাসান জামিল, কওমী ফোরামের সদস্য মাওলানা ওয়ালিউল্লাহ আরমান, কওমী ফোরামের সদস্য মুফতী এনায়েতুল্লাহ, কওমী ফোরামের সদস্য মাওলানা গাজী ইয়াকুব, লেখক ও কলামিস্ট মাওলানা রুহুল আমীন সাদী।আরও বক্তব্য রাখেন ইসলামী যুব আন্দোলনের সভাপতি  কে. এম. আতিকুর রহমান, যুব জমিয়ত বাংলাদেশ (ক) এর সভাপতি মাওলানা তাফহিমুল হক, যুব জমিয়ত বাংলাদেশ (ও) এর সভাপতি মাওলানা রিদওয়ানুল বারী সিরাজী, খেলাফত যুব আন্দোলন

বাংলাদেশের সভাপতি মাওলনা কারী সিদ্দীকুর রহমান, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা এনামুল হক মুসা, সহ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাওলানা ফয়সাল আহমদ, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস ঢাকা মহানগরের সভাপতি মাওলানা রুহুল আমিন খান, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল মুমিন।এছাড়াও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ফেলাফত যুব মজলিসের কেন্দ্রীয় সংগঠন বিভাগের সম্পাদক মাওলানা ফজলুর রহমান, কেন্দ্রীয় প্রশিক্ষণ বিভাগের সম্পাদক মাওলানা জহিরুল ইসলাম,

কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকাশনা বিভাগের সম্পাদক ও ঢাকা মহানগরীর সভাপতি মাওলানা রাকিবুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় সমাজকল্যাণ বিভাগের সম্পাদক মাওলানা শরীফ হুসাইন, খুলনা জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা ওয়ালী উল্লাহ, নড়াইল জেলা শাখার সভাপতি হাফেজ আবুল কালাম আজাদ, কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা মুহাম্মাদ আলী, নরসিংদী জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা আনোয়ার মাহমুদ, নেত্রকোনা জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা মাজহারুল ইসলাম, বাংলাদেশ খেলাফত ছাত্র মজলিসের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মাদ জাকির হুসাইন, সভাপতি পরিষদ সদস্য আবু নাইম, মোশাররফ হুসাইন লাবীব প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

পরিচালনা পর্ষদ

সম্পাদক ও প্রকাশক:
Admin
© ২০২০ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত.মুসলিম ভয়েস কোপেরেটিভ লি.
Design By NooR IT
themesba-lates1749691102