রবিবার, ০৭ মার্চ ২০২১, ০৩:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কাশ্মীরের জামা মসজিদ বন্ধ করে জুমার নামায পড়তে দেয়নি ভারত জুমার আলোচনায় খতিবদের ডেঙ্গু-গুজব-বন্যা নিয়ে বক্তব্য রাখার আহ্বান ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর মসজিদে গুলি করতে গিয়ে উল্টো ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন সাবেক মার্কিন সেনা! কোম্পানীগঞ্জে দিনদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ ৪ দিন পরও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ বানিয়াচংয়ে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের আবিস্কার নিয়ে বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত খুলনায় স্কুল ছাত্রীর নগ্ন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ায় যুবক গ্রেফতার এ মাসের শেষের দিকে হতে পারে চট্টগ্রাম (চসিক) ভোট খুলনার বটিয়াঘাটায় শিশু হত্যাঃ আটক ২ ডিসেম্বরের প্রথম দিন মুক্তিযোদ্ধাদের ভালো বাসায় সিক্ত হলেন – এমপি শাওন খুলনায় বিশ্ব এইডস দিবস পালিত সৌদি আরবে এখনো টিকে আছে মুসা আ: এর স্মৃতি বিজরিত কূপ ও বাড়ি কর্ণফুলীতে সড়ক দুর্ঘটনায় মটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু লালমোহনে সামাজিক বিবাদে প্রাথমিক বি. শিক্ষকের উপর আক্রমণ প্রতিবাদ জানান জেলা শিক্ষক সমিতি

সৌদি আরবে এখনো টিকে আছে মুসা আ: এর স্মৃতি বিজরিত কূপ ও বাড়ি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১০৪ Time View

আবু সাঈদ শাকিল : হযরত মুসা (আ:) আল্লাহর একজন নবী ও রাসুল (খ্রিস্টানদের কাছে তিনি মোশি নামে পরিচিত) যাকে বনি ইসরাইল সম্প্রদায়ের কাছে প্রেরণ করা হয়েছিল। কিন্তু অনেকেই জানেন না যে হযরত মুসা (আ:) তিনি মিসরে জন্মগ্রহণ করলেও তার জীবনের ১০ বছর সৌদি আরবে কাটিয়েছিলেন।

যখন হযরত মুসা (আ:) বনি ইসরাইলের এক ব্যক্তির পক্ষ নিতে গিয়ে একজন মিসরীয়কে হত্যা করে ফেলেন, তখন মিসরের শাসক ফেরাউন তাকে বন্দীর আদেশ দেয়। হযরত মুসা (আ:) এ বিষয়টি জানতে পেরে মিসর ছেড়ে মাদায়েন শহরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

মাদায়েন শহরে পৌঁছে তিনি পানি খাওয়ার জন্য একটি কূপে যান। তখন তিনি দেখেন যে দু’জন মেয়ে তাদের পশুদের পানি পান করানো জন্য অপেক্ষা করছে। তারা রাখালদের পশুগুলোর পানি পান শেষ হওয়ার অপেক্ষা করছে। তখন হযরত মুসা (আ:) তাদেরকে সাহায্য করেছিলেন।

যখন হযরত মুসা আ: মেয়েদের জন্য পানি পান করাতে সাহায্য করেন তখন ওই দুই মেয়ে মুসাকে (আ:) তার সাহায্যের জন্য পুরস্কার দিতে চান।

তারা মুসাকে (আ:) তাদের বাবার কাছে নিয়ে যান। আর মেয়ে দু’জনের বাবা ছিলেন হযরত শোয়াইব (আ:)। তিনি দেখলেন যে হযরত মুসা (আ:) অত্যন্ত বিনয়ী তিনি মুসাকে (আ:) তাদের সাথে আট বছর বসবাস করতে বলেলেন। পরে সেটি ১০ বছর পর্যন্ত স্থায়ী হয়েছিল। এরপর হযরত মুসা (আ:) ওই মেয়ে দু’জনের একজনকে বিয়ে করেন। যার নাম ছিলো জিপ্পোরাহ।

আমরা মুসা (আ:) সম্পর্কে জেনেছি যে তিনি মিসরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন এবং ফেরাউনের স্ত্রী তাকে প্রাসাদে এনে লালন-পালন করে। তিনি যে জায়গাতে ১০ বছর অবস্থান করেছিলেন সেটি বর্তমানে মাগহের শোয়াইব নামে পরিচিত।

ওই স্থানটি সৌদি আরবের তাবুক থেকে থেকে ২২৫ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত।

এটি আরব উপদ্বীপের উত্তর-পশ্চিমে আল বিদা প্রদেশে অবস্থিত। আপনি যখন হজ বা ওমরাহর জন্য সৌদি আরব যাবনে, ওই স্থানটি দেখতে ভুলবেন না। মুসলমানদের জন্য যেটি সত্যি বিশ্বের অন্যতম ঐতিহাসিক স্থান।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

আমাদের সম্পর্কে

Muslim Voice
মুসলিম উম্মাহর সকল সংবাদ নিয়ে আমাদের আয়োজন।
পড়ুন, লিখুন, সংবাদ দিন।
© ২০২০ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত.মুসলিম ভয়েস কোপেরেটিভ লি.
Design By NooR IT
themesba-lates1749691102