শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:১১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কাশ্মীরের জামা মসজিদ বন্ধ করে জুমার নামায পড়তে দেয়নি ভারত জুমার আলোচনায় খতিবদের ডেঙ্গু-গুজব-বন্যা নিয়ে বক্তব্য রাখার আহ্বান ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর মসজিদে গুলি করতে গিয়ে উল্টো ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন সাবেক মার্কিন সেনা! ইন্টারনেট সেবা নিতে চাইলে কোরআনে শপথ নিতে হবে মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে আয়ের একমাত্র অবলম্বন ভ্যানটি চুরি হয় বিমানবন্দরে লাগেজ হারিয়ে গেলে ফিরে পাওয়ার উপায় আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির সাথে হিজরী সন সম্পৃক্ত: চরমোনাই পীর The story of success -Ashraf Ali Sohan চিত্রনায়িকা পরী মণি ও (এডিসি) সাকলায়েনের নতুন ভিডিও ফাঁস, দেখুন গোপালপুরে মসজিদে হামলায় বৃদ্ধ নিহত, সড়ক অবরাধ, আটক দুই কোম্পানীগঞ্জে দিনদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ ৪ দিন পরও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ বানিয়াচংয়ে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের আবিস্কার নিয়ে বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত খুলনায় স্কুল ছাত্রীর নগ্ন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ায় যুবক গ্রেফতার

সেতুর অভাবে গোলাপগঞ্জে ৩০ গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১১ মার্চ, ২০২০
  • ৪৬ Time View

গোলাপগঞ্জের উপজেলার প্রাচীন একটি জনপদ হল বাঘা ইউনিয়ন। ১৯৬০ সালের প্রতিষ্ঠিত প্রাচীন এই ইউনিয়নের জনসংখ্যা প্রায় এক লাখ। ত্রিশের অধিক গ্রামের এই গ্রামীণ জনপদ থেকে গোলাপগঞ্জ বাজারে আসতে পারি দিতে নয় সুরমা নদী। কিন্তু এই অঞ্চলে সুরমা নদীর উপর কোন ব্রিজ না থাকায় নৌকাই একমাত্র ভরসা।

এজন্য গোলাপগঞ্জ থানার পিছনের একটি জায়গায় বসানো হয়েছে খেয়া ঘাট। আর এই ঘাট দিয়েই বাঘা ইউনিয়নের প্রায় ত্রিশ গ্রামের মানুষ বাজারে প্রবেশ করেন। একটি মাত্র নৌকায় এতো মানুষ পারাপারে ঝুঁকি থাকলেও বিকল্প উপায় না থাকায় মানুষ বাধ্য হয়েই নৌকায় উঠছেন। তবে শুল্ক মৌসুমে দখল দূষণের শিকার সুরমা ছোট হয়ে আসলেও বর্ষায় পানিতে টইটুম্বুর থাকে। এসময় ছোট ছোট নৌকায় অতিরিক্ত মানুষ নিয়ে ছুটে চলা নৌকায় থাকে নানান শঙ্কা।

আর এই শঙ্কা মাথায় নিয়েই বছরের বছর পর ধরে চলতে হচ্ছে প্রায় এক লাখ মানুষকে। এলাকার মানুষ জীবনের ঝুঁকি কমাতে সুরমার বুকে একটি ব্রিজ নির্মাণের দাবিতে মানববন্দন, স্মারকলিপি, বিক্ষোভ করলেও কোন কাজ হয়নি। মিলেছে শুধুই আশ্বাস। আর সেই আশ্বাসের বৃত্তে বন্দি হয়ে ভোগান্তি সহ্য করে চলছেন স্কুল শিক্ষার্থী, শিশু, কিশোর, যুবক, থেকে প্রসূতি মায়েরাও।

তবে এখনও আশ্বাস ছাড়া আর কোন খবর দিতে পারেনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিস। এই যেমন বাঘা ইউনিয়নের লালনগর এলাকার বাসিন্দা নুরুল ইসলাম জানেনই না মৃত্যুর আগে সেতু দেখে যেতে পারবেন কি না। আক্ষেপ আর হতাশার সুরে তিনি বলেন, আমরা জানি না সুরমা নদীর উপর কবে একটা সেতু নির্মাণ হবে।

তিনি বাঘা বাসির এই স্বপ্ন পূরণ করতে জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহবান জানান। অন্যদিকে কালাকোনা গ্রামের শিক্ষার্থী হাছান আহমদ জানান, নৌকা ছোট হওয়ায় অনেক সময় একসাথে সবাই পাড়ি দেওয়া সম্ভব হয় না। এতে অনেক সময় কলেজে যেতে দেরি হয়ে যায়। রুস্তমপুরে ষাটোর্ধ সুনাবা বেগম জানান, সকাল ৯টার সময় নৌকার জন্য এসে দাঁড়িয়েছি। কিন্তু নৌকার সংকটের জন্য নদী পাড় হতে ১ঘন্টা সময় লেগেছে। যদি একটি সেতু থাকত তাহলে এত সময় লাগত না।

অনেকটা ভয় নিয়ে নদী পার হতে হয়। আর বাঘা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছানা মিয়া জানান, অনেক সময় বাঘাবাসি সুরমা নদীতে সেতু স্থাপনে আশ্বাস পেলেও তাদের এই আশ্বাস বাস্তবে রূপ নেয় না। সুরমা নদীতে সেতু স্থাপন করা হলে কয়েক হাজার মানুষের কষ্ট লাগব হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুনুর রহমান জানান, আমাদের উপজেলার যে বাজেট সেটা দিয়ে এতো বড় কাজ করানো সম্ভব নয়। সুরমা নদী ও কুশিয়ারা নদীর উপর সেতুর জন্য ইঞ্জিনিয়ারের সাথে কথা হয়েছে। মন্ত্রণালয়ে আবেদন করার জন্য। আশাকরি শীঘ্রই তারা আবেদন করবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

পরিচালনা পর্ষদ

সম্পাদক ও প্রকাশক:
Admin
© ২০২০ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত.মুসলিম ভয়েস কোপেরেটিভ লি.
Design By NooR IT
themesba-lates1749691102