শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৯:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কাশ্মীরের জামা মসজিদ বন্ধ করে জুমার নামায পড়তে দেয়নি ভারত জুমার আলোচনায় খতিবদের ডেঙ্গু-গুজব-বন্যা নিয়ে বক্তব্য রাখার আহ্বান ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর মসজিদে গুলি করতে গিয়ে উল্টো ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন সাবেক মার্কিন সেনা! Splash Chia Seeds To Supercharge Your Metabolism, Burn Fat And Fight Inflammation ইন্টারনেট সেবা নিতে চাইলে কোরআনে শপথ নিতে হবে মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে আয়ের একমাত্র অবলম্বন ভ্যানটি চুরি হয় বিমানবন্দরে লাগেজ হারিয়ে গেলে ফিরে পাওয়ার উপায় আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির সাথে হিজরী সন সম্পৃক্ত: চরমোনাই পীর The story of success -Ashraf Ali Sohan চিত্রনায়িকা পরী মণি ও (এডিসি) সাকলায়েনের নতুন ভিডিও ফাঁস, দেখুন গোপালপুরে মসজিদে হামলায় বৃদ্ধ নিহত, সড়ক অবরাধ, আটক দুই কোম্পানীগঞ্জে দিনদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ ৪ দিন পরও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ বানিয়াচংয়ে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের আবিস্কার নিয়ে বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত

শরীয়তপুরে সৈয়দ ফজলুল করীম রহ. এর জীবন-চরিত্র ও ঐতিহ্য-অবদান শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৯
  • ৩১২ Time View

গতকাল বৃহস্পতিবার ( ২২ আগস্ট ২০১৯ ইং) শরীয়তপুর জেলা ইসলামী যুব আন্দোলনের উদ্যোগে
জেলা যুব আন্দোলনের সভাপতি মুফতি ইমরান হোসাইনের সভাপতিত্বে ও জেলা যুব আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ হযরত আলীর সঞ্চালনায়
ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা,
এশিয়া মহাদেশের বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও চরমোনাইর মরহুম পীর সৈয়দ ফজলুল করীম রহ. এর জীবন-চরিত্র, ঐতিহ্য-অবদান শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-ইসলামী যুব আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রকাশনা সম্পাদক এস এম আজীজুল হক।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- শরীয়তপুর জেলা ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সেক্রেটারি মাওলানা হাফিজুর রহমান শরীয়তপুরী।
সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা যুব আন্দোলনের সহ-সভাপতি মাস্টার দেলোয়ার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ আবু বকর,অর্থ সম্পাদক হাফেজ মাওলানা সফিকুল ইসলাম,প্রচার সম্পাদক মুহাম্মাদ হুমায়ুন কবির,প্রকাশনা সম্পাদক মাইনুদ্দীন আহমাদ মানিক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আশ্রাফ,আইন সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আমিনুল ইসলাম,দাওয়াত ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাওলানা ইমরান হুসাইন,যুব কল্যাণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সৈকত, শিক্ষা ও সাংস্কৃতি সম্পাদক মাওলানা আব্দুল মতিন,তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মাওলানা আবুযর আহমাদ সিফাত,শিল্প ও বানিজ্য সম্পাদক তারেক রহমান তারা মিয়া,মহিলা ও পরিবার সম্পাদক মুহাম্মাদ রফিকুল ইসলাম, মানবাধিকার সম্পাদক বি এম জাকির হোসেন,উপ-সম্পাদক এইচ এম ইমরান হুসাইন, উপ-সম্পাদক মুফতি মুহাম্মদ আল আমিন, উপ-সম্পাদক মুহাম্মাদ ইয়াসিন আরাফাত, উপ-সম্পাদক মুহাম্মাদ সোহাগ হাওলাদার
সহ জেলা উপজেলা বিভিন্নস্তরের নেতৃবৃন্দ।

হুজুরের জীবন-কর্ম,ঐতিহ্য-অবদান উল্লেখ করা হল

মাওলানা ফজলুল করিম রহ. এর ৭১ বছরের কর্মময় ও সংগ্রামী জীবন এক বিস্ময়কর উপখ্যান। তিনি পথভোলা মানুষের আত্মিক পরিশুদ্ধি ও নৈতিক সমৃদ্ধির সর্বাত্মক প্রচেষ্টা যেমন চালিয়েছেন তেমনি শিরক বিদআতের মোকাবেলা করেছেন। তিনি গণমানুষের মুক্তির জন্যে অধিকার আদায়ের জন্যে রাজপথে আন্দোলন ও সংগ্রাম করেছেন। আবার শিক্ষা সংস্কার তালিম তারবিয়াতেও আত্মনিয়োগ করেছেন।

এ ক্ষণজন্মা মহাপুরুষ ১৯৩৫ সাল মোতাবেক ১৩৫৪ হিজরীতে বরিশাল জিলার কোতোয়ালী থানার অন্তর্গত চরমোনাই গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। আলিম ও বুযুর্গ পিতা-মাতার তত্বাবধানে এবং দ্বীনী পরিবেশে তাঁর শিক্ষার হাতে খড়ি হয়। মাত্র ৫ বছর বয়সে তিনি নিজ গ্রামস্থ চরমোনাই প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। পাশাপাশি পিতা-মাতার যতেœ স্থানীয় মক্তবে পবিত্র কুরআন শিক্ষা শুরু করেন এবং চরমোনাই প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত পড়ার পর তিনি ১৯৪৫ সালে পিতার প্রতিষ্ঠিত চরমোনাই আহ্সানাবাদ রশীদিয়া আলিয়া মাদ্রাসায় ভর্তি হন। এখান থেকে কৃতিত্বের সাথে তিনি ফাযিল পাস করেন। এখানে তাঁর উস্তাদগণের মধ্যে উলে¬খযোগ্য ছিলেন মুফতীয়ে আ’যম হযরত মাওলানা আবদুল মুঈয বিহারী রহ.। অতঃপর ১৯৫৬ সালে তিনি উচ্চ শিক্ষার জন্য ঢাকার লালবাগ জামেয়া কুরআনিয়ায় লালবাগ ভর্তি হন। লালবাগ মাদ্রাসায় দু’বছর অধ্যায়ন করে ১৯৫৭ সালে তিনি কৃতিত্বের সহিত দাওরায়ে হাদীস পাস করেন। দাওরায়ে হাদীসে তিনি প্রথম স্থান লাভ করেন। হযরত পীর সাহেব রহ. লালবাগ মাদ্রাসার প্রখ্যাত মুহাদ্দিস মুজাহিদে আ’যম হযরত মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী রহ., আল্লামা হেদায়াতুল্লাহ রহ., হযরত মাওলানা মুহাম্মদ উল্লাহ হাফেজ্জী হুজুর রহ., হযরত মাওলানা আবদুল মজীদ ঢাকুবী হুজুর রহ., হযরত মাওলানা মুফতী আবদুল মুহীত সাহেব রহ., এবং শাইখুল হাদীস আল্লাম হযরত মাওলানা আজিজুল হক সাহেব প্রমুখ যুগশ্রেষ্ঠ বুযুর্গ আলিমদের নিকট অধ্যয়ন করেন।

হযরত পীর সাহেব হুজুর রহ. যখন লালবাগ মাদ্রাসায় পড়াশোনা করেন, তখন হযরত হাফেজ্জী হুজুর রহ. দাওরায়ে হাদীস ক্লাসে বোখারী শরীফ এবং তিরমিযী শরীফ পড়াতেন। বার্ষিক পরীক্ষায় হযরত হাফেজ্জী হুজুর রহ. তাঁর সঠিক উত্তর প্রদান ও চৌকষ লেখার প্রতি সন্তুষ্ট হয়ে তিরমিযী শরীফে ১০০ নাম্বারের মধ্যে ১০৫ নাম্বার প্রদান করেন। উল্লেখ্য যে, খুব ভাল লিখলে কওমি মাদরাসায় পূর্ণমানের চেয়ে বেশী ন¤^র দেয়ার একটা প্রচলন তৎকালে বিদ্যমান ছিল।

শিক্ষকতা
১৯৫৭ ইং সালে হযরত পীর সাহেব চরমোনাই রহ. লালবাগ মাদ্রাসা হতে দাওরায়ে হাদীস পাস করার পর চরমোনাই আহ্সানাবাদ রশীদিয়া আলিয়া মাদ্রাসায় মুহাদ্দিস হিসেবে নিয়োজিত হন। এ সময় থেকে একটানা বার বছর পর্যন্ত তিনি মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন। হযরত পীর সাহেব হুজুর রহ. হাদীস, তাফসীর, ফিক্বহ, উসূল ইত্যাদি সব ধরণের কিতাবই পড়াতেন। তিনি “মাকামাতে হারিবী”ও অনায়াসে পড়াতেন, যাতে তার আরবী ভাষা ও সাহিত্যে দক্ষতা প্রস্ফুটিত হয়ে উঠত। কামিল জামায়াতে তিনি ইবনে মাজাহ শরীফের দরসে দিতেন। এছাড়া তিনি শামায়েলে তিরমিযীও নিয়মিত পড়াতেন। মাঝে মাঝে বুখারী শরীফের দরস দিতেন। এসব কিতাব ছাড়া মিশকাত শরীফ, হিদায়া, শরহে বিকায়া, নূরুল আনওয়ারসহ দরসী প্রায় সব কিতাবের তিনি পাঠদান করতেন।

অবদান
হযরত পীর সাহেব হুযুর রহ. এর অবদানে বর্তমানে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে-
১. বাংলাদেশ কুরআন শিক্ষা বোর্ড
২. হিফয বিভাগ
এ বিভাগে দক্ষ হাফিযদের মাধ্যমে অল্প সময়ে পবিত্র কুরআন হিফয করানো হয়।
৩. ক্বিরাআত বিভাগ
সুদক্ষ ক্বারীর তত্বাবধানে সহীহ্ ভাবে এবং ইলমে তাজবীদ সহকারে কুরআন তিলাওয়াত ও ক্বিরাআতে ছাবআ বা সাত ক্বিরাআত শিক্ষার আলাদা বিভাগ।
৪. তাখাচ্ছুছ বা অনার্স
হাদীস, তাফসীর ও ফিক্বহ শাস্ত্রে বিশেষ পারদর্শিতা অর্জনের জন্য এ বিভাগ চালু করা হয়।
৫. মুজাহিদ প্রকাশনী
বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটি কর্তৃক পরিচালত “মুজাহিদ প্রকাশনী” হযরত পীর সাহেব হুযুর রহ. এর নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এ প্রকাশনী হতে আজ পর্যন্ত প্রায় ১৪০-১৫০ টি কিতাব প্রকাশিত হয়েছে। এসব কিতাবের মধ্যে রয়েছে কুরআন, হাদীস, ফিক্বহ, তাসাওউফ ও রাজনৈতিক বিষয়ের ওপরে লিখিত কিতাব।
৬. কুরআন শিক্ষা বোর্ড প্রকাশনা বিভাগ
কুরআন শিক্ষা বোর্ডের অধীনস্থ মাদ্রাসাসমূহের পাঠ্যপুস্তকে এ প্রকাশনা হতে প্রকাশ করা হয়।
৭. ইশা আন্দোলন প্রকাশনা বিভাগ
এ প্রকাশনা বিভাগ হতে আন্দোলন, সংগ্রাম ও স্বাধীনতা সংক্রান্ত কিতাবাদি প্রকাশিত হয়।
৮. আল-ফাতাহ প্রকাশনী
এ প্রকাশনী থেকেও বিভিন্ন বিষয়ের ওপরে লিখিত বই পুস্তক প্রকাশিত হয়।

৯. মারকাযুদ্দাওয়াহ ওয়াল ইফতা
দেশের শীর্ষস্থানীয় ফক্বীহদের সময়ে এ বিভাগ চালু করা হয়েছে। সমসাময়িক কালের উদ্ভূত নতুন নতুন সমস্যার কুরআন, সুন্নাহ, ইজমা ও কিয়াসের আলোকে সমাধান পেশ করা তথা ফতোয়া ও মাসআলা প্রদান করা এ বিভাগের অন্যতম দায়িত্ব। এ বিভাগ হতে ইতোমধ্যে দেশে প্রচলিত নেটওয়ার্ক বিজনেসের ব্যাপারে সুষ্পষ্ট ফতোয়া প্রদান করা হয়েছে।
এছাড়াও বিভিন্ন প্রকাশনা সংস্থা থেকে হযরত পীর সাহেব রহ. এর বয়ান, ভাষণ, ওয়ায-নসীহতসমূহ পুস্তক আকারে বের হয়েছে, যা মানুষের জন্য হেদায়েতের আলোক বর্তিকা স্বরূপ।
গ্রন্থরাজির মধ্যে উলে¬¬খযোগ্য হল-
১) মাওয়ায়েযে কারীমিয়া (১ম থেকে ৪র্থ খন্ড পর্যন্ত) এ সব কিতাবে চরমোনাই মাহফিলে পীর সাহেব হুযূরের বয়ানসমূহ সংকলিত হয়েছে।
২) মানুষ হওয়ার উপায়-এটি বিভিন্ন রমযানের তারবিয়াতের বয়ানের কিতাব, যা তাসাউফ ও মা’রিফাতের স্বরূপ।
৩) কুয়েতের ভাষণ- ২৫/০৯/৯৭ ইং তারিখে কুয়েত সিটিতে হযরত পীর সাহেব রহ. ওলামায়ে কেরামের সম্মেলনে যে ঐতিহাসিক ভাষণ পেশ করেন তা সংকলিত হয়েছে।
৪) চরমোনাইর হযরত পীর হুযূরের ঐতিহাসিক ভাষণ ৩০ ডিসেম্বর’ ৯৪ বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে স্মরণকালের সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ যে ভাষন পেশ করেন, তা এতে সংকলিত হয়েছে।
৫) চরমোনাইর পীর সাহেব হুযূরের কুয়েতের পাঁচ দিন
৬) চরমোনাইর পীর সাহেব হুযূরের ভারত সফর।

বাইয়াত গ্রহণ ও খেলাফত লাভ
হযরত মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ ফজলুল করীম রহ. ছাত্র জীবনেই তাঁর পিতা ও শাইখ হযরত মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ ইসহাক রহ. এর নিকট তরীকতের বাইয়াত গ্রহণ করেন। জাহেরী ইল্মের পাশাপাশি তিনি বাতেনী ইল্মও অর্জন করেন।

শাইখের স্থলাভিষিক্ত
হযরত মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ ফজলুল করীম রহ. পিতা ও শাইখ হতে তরীকতের খেলাফত লাভ করলেও শাইখ কর্তৃক স্থলাভিষিক্ত নির্ধারিত হননি। সৈয়ধ মুহাম্মদ ইসহাক রহ. অন্য কাউকেও স্থলাভিষিক্ত করে যাননি বরং তিনি এ জন্য তার খলীফাদের মধ্য থেকে ১২ জনকে নিয়ে একটি শূরা কমিটি গঠন করেন এবং এ কমিটিকে অসিয়ত করেন যে, তাঁর ইন্তিকালের পর শূরা কমিটি তাঁর খোলাফাদের মধ্য থেকে যাঁকে অধিক মুত্তাক্বী, আমলদার ও যোগ্যতা সম্পন্ন মনে করবে তাঁকে তাঁর স্থলাভিষিক্ত নির্বাচন করবে। মাওলানা সৈয়দ ইসহাক রহ. এর ইন্তিকালের পর ১৯৭৩ ইং সালে শূরা কমিটি অসিয়ত অনুযায়ী তাঁর দ্বিতীয় সাহেবজাদা ও খলীফা মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ ফজলুল করীম রহ. কে তাক্বওয়া, আমল ও যোগ্যতার দিক দিয়ে অগ্রগামী সাব্যস্ত করে তাঁকে শাইখের স্থলাভিষিক্ত নির্বাচিত করেন।

বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটি গঠন
হযরত মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ ফজলুল করিম রহ. এর আব্বাজান হাদীয়ে যমান হযরত মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ ইসহাক (পীর সাহেব চরমোনাই) রহ. তরীকার খিদমত সুষ্ঠুভাবে আঞ্জাম দেয়ার জন্য “বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটি” গঠন করেন। যেহেতু তাঁর তরীকতের দীক্ষায় অনুসারী ও মুরীদদের আত্মশুদ্ধির বিষয়টিকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে থাকেন, সে মতে তাদেরকে সর্বদা নফসের বিরুদ্ধে জিহাদে লিপ্ত থাকতে উৎসাহিত করেন। এজন্য সৈয়দ মুহাম্মদ ইসহাক রহ. তাঁর মুরীদদের নাম রাখেন মুজাহিদ। এ নামকরণের আরো একটি কারণ হল, তার মুরীদগণ নফসের বিরুদ্ধে জিহাদ করে যেমন নফসকে পরিশুদ্ধ ও নির্মল করবে, তেমনি তারা সমাজ ও দেশ থেকেও অন্যায় ও বাতিলকে উৎখাত করে সেখানে ইসলামী হুকুমাত কায়েম করা তথা সমাজকে নির্মল ও পরিশুদ্ধ করতেও মুজাহিদের ভূমিকা পালন করবে। মুজাহিদ কমিটির যিনি নেতৃত্ব দিবেন তিনি হবেন আমীরুল মুজাহিদীন। পরবর্তিতে মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ ফজলুল করিম রহ. এর নেতৃত্বে এ কমিটি বাংলাদেশের সর্বত্র এমনকি বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের মাঝে ইসলামের প্রয়োজনীয় বিষয়াদি পৌঁছে দিচ্ছেন। বিশেষ করে এই মুজাহিদরা তাদের আত্মশুদ্ধির জন্য নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

ইন্তেকাল
শাহসূফী আল্লামা সৈয়দ মুহাম্মদ ফজলুল করীম (পীর সাহেব চরমোনাই) রহ. এ ক্ষণজন্মা মহাপুরুষ ২০০৩ সাল ২৫ নভেম্বর মোতাবেক ১১ অগ্রহায়ন রোজ শনিবার বেলা সকাল সাড়ে নয়টায় ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি …আল্লামা তায়ালা তাকে জান্নাতুল ফিরদাউস নসীব করুন এবং তার রেখে যাওয়া পরিবার-পরিজন ও কোটি কোটি মুরিদ ভক্তদের কবুল করুন। আমিন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

পরিচালনা পর্ষদ

সম্পাদক ও প্রকাশক:
Admin
© ২০২০ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত.মুসলিম ভয়েস কোপেরেটিভ লি.
Design By NooR IT
themesba-lates1749691102