বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কাশ্মীরের জামা মসজিদ বন্ধ করে জুমার নামায পড়তে দেয়নি ভারত জুমার আলোচনায় খতিবদের ডেঙ্গু-গুজব-বন্যা নিয়ে বক্তব্য রাখার আহ্বান ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর মসজিদে গুলি করতে গিয়ে উল্টো ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন সাবেক মার্কিন সেনা! ইন্টারনেট সেবা নিতে চাইলে কোরআনে শপথ নিতে হবে মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে আয়ের একমাত্র অবলম্বন ভ্যানটি চুরি হয় বিমানবন্দরে লাগেজ হারিয়ে গেলে ফিরে পাওয়ার উপায় আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির সাথে হিজরী সন সম্পৃক্ত: চরমোনাই পীর The story of success -Ashraf Ali Sohan চিত্রনায়িকা পরী মণি ও (এডিসি) সাকলায়েনের নতুন ভিডিও ফাঁস, দেখুন গোপালপুরে মসজিদে হামলায় বৃদ্ধ নিহত, সড়ক অবরাধ, আটক দুই কোম্পানীগঞ্জে দিনদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ ৪ দিন পরও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ বানিয়াচংয়ে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের আবিস্কার নিয়ে বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত খুলনায় স্কুল ছাত্রীর নগ্ন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ায় যুবক গ্রেফতার

যুক্তরাষ্ট্রে আত্মহত্যার হার ৫০ বছরে সর্বোচ্চ স্তরে

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৯
  • ৪৬ Time View

মুসলিম ভয়েস ডেস্ক | অতীতের তুলনায় আত্মহত্যা প্রতিরোধ প্রচেষ্টায় আরও বেশি অর্থ ব্যয় করা সত্তে¡ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আত্মহত্যার হার নাটকীয়ভাবে বেড়ে চলেছে। 

একটি নতুন সমীক্ষা আবিষ্কার করেছে যে, আমাদের আত্মহত্যার হার আসলে ১৯৯৯ এবং ২০১৬ সালের মধ্যে ৪১ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। আমেরিকার যে কোন প্রজন্ম আমাদের জীবনযাত্রার সর্বোচ্চ মান অর্জন করেছে তা সত্ত্বেও আমরা অত্যন্ত অসুখী জাতি এবং আমরা নিজেদের অভুতপূর্ব সংখ্যায় হত্যা করছি।
এটি হওয়া উচিত নয়, তবে দুর্ভাগ্যক্রমে যে শক্তিগুলি আমাদের সংস্কৃতি দখল করেছে তারা বহুসংখ্যক আমেরিকানকে নিশ্চিত করেছে যে, তাদের জীবন আর বেঁচে থাকার উপযুক্ত নয়। এমন সংস্কৃতিতে যেখানে সত্যকে পরিত্যাগ করা হয়েছে, মিথ্যাচারের পক্ষে প্রচার চালানো সহজ এবং কারো স্বেচ্ছায় আত্মহত্যা বেছে নেবার অবারিত সুযোগ বিদ্যমান। 
দুঃখের বিষয়, এই দেশে আত্মহত্যার হার বছরের পর বছর বাড়তে থাকে। লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমসের মতে, ২০১৭ হল সর্বশেষতম বছর যেখানে নির্ভরযোগ্য পরিসংখ্যান পাওয়া যায় এবং সেই বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আত্মহত্যার হার ৫০ বছরের উচ্চতাকে আঘাত করে।

তারা ঘনবসতিপূর্ণ বা গভীর গ্রামাঞ্চল হোক, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কয়েকটি সম্প্রদায় গত দুই দশকে আত্মহত্যার ক্ষেত্রে মারাত্মক বৃদ্ধি এড়াতে পেরেছে। ১৯৯৯ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ২৫ থেকে ৬৪ বছর বয়সী ৪৫৩,৫৫ জন আত্মহত্যা করেছে। প্রাপ্তবয়স্ক আত্মহত্যাকারী এই সংখ্যা এক হাজারেরও বেশি জাম্বো জেট পরিপূর্ণ করতে পারে।
এই সংখ্যাগুলি একটি নতুন গবেষণায় সবেমাত্র প্রকাশিত হয়েছে এবং এটি দাবি করেছে যে, আমাদের আত্মহত্যার হার আসলে ১৯৯৯ এবং ২০১৬ সালের মধ্যে ৪১ শতাংশ বেড়েছে।

‘গবেষকরা ১৯৯৯ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে সংগৃহীত জাতীয় আত্মহত্যার ডেটা মূল্যায়ন করেছেন। তারপরে ২৫-৬৪ বছর বয়সী সমস্ত প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে আত্মহত্যার হারের একটি কাউন্টি বাই কাউন্টি অনুমান তৈরি করেছেন। সেই সময়কালে আত্মহত্যার হার আশ্চর্যজনকভাবে ৪১ শতাংশ বেড়েছে; বিশ্লেষণের শেষ তিন বছরে ১৯৯৯ থেকে ২১.২ পর্যন্ত প্রতি লাখ কাউন্টি বাসিন্দার মধ্যে ১৫ জন আত্মহত্যা করেছেন।

আত্মহত্যা আমাদের কিশোর, তরুণ এবং বয়স্কদের মধ্যেও দ্রুত বর্ধমান সমস্যা। আসলে, ১০ বছর থেকে ২৪ বছর বয়সী আমেরিকানদের মধ্যে এখন মৃত্যুর দ্বিতীয় প্রধান কারণ আত্মহত্যা।
প্রত্যেকেই খুব খারাপ সময়ের মধ্য দিয়ে যায় এবং অনেকের কাছে মনে হয় এ ধরনের খারাপ সময় কখনই শেষ হবে না। কিন্তু যখন আমি বহু বছর আগে আমার সর্বনিম্ন পয়েন্টে ছিলাম তখন আমার সর্বদা বিশ্বাস ছিল যে, আরও ভাল দিন আসছে। যদিও আমি সেই সময়টি আমার সামনে থাকা একেবারে আশ্চর্যজনক বিষয়টির কল্পনাও করতে পারতাম না। আমি যে বক্তব্যটি তৈরি করার চেষ্টা করছি তা হ’ল আমরা জানি না ভবিষ্যতে কী ধারণ করবে। এই মুহূর্তে অন্ধকার বিষয়গুলি আপনার কাছে যতই লাগুক না কেন, আশ্চর্যরূপে এক অলৌকিক ঘটনা কোণার চারপাশে থাকতে পারে।

এই নতুন সমীক্ষা যা সবেমাত্র প্রকাশিত হয়েছে তা আবিষ্কার করেছে যে দেশের গ্রামীণ অঞ্চলে আত্মহত্যার হার উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি।
এটি লক্ষণীয় ছিল যে, স্বল্প-জনবহুল কাউন্টিতে এবং এমন অঞ্চলে যেখানে লোকেরা কম আয় করে এবং সংস্থাগুলিতে অ্যাক্সেস হ্রাস করে সেখানে আত্মহত্যার হার সর্বাধিক ছিল। উদাহরণস্বরূপ, ২০১৪ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে বৃহত্তর মহানগর কাউন্টিতে প্রতি লাখ মানুষের মধ্যে ১৭.৬ শতাংশ আত্মহত্যা হয়েছিল, যা গ্রামীণ কাউন্টিতে রেকর্ডকৃত ১ লাখ লোকের মধ্যে ২২ জনের আত্মহত্যার চেয়ে উল্লেখযোগ্যভাবে কম।

গ্রামীণ অঞ্চলে জীবনযাত্রার মান বিভিন্ন পর্যায়ে খুব সুন্দর। তবে এখানে নিঃসঙ্গতা ও দারিদ্র্যও রয়েছে। মানুষকে বোঝানো হয় সামাজিক জীব এবং যখন আশেপাশে প্রচুর লোক না থাকে তখন হতাশার অনুভ‚তিগুলিকে খাওয়াতে পারে। যদি কেউ দারিদ্র্যের সাথে গভীরভাবে সংগ্রাম করে তবে কয়েকটি অর্থনৈতিক সুযোগ রয়েছে এমন কোনও অঞ্চলে পথ খুঁজে পাওয়া মুশকিল হতে পারে। ব্রুকিংস ইনস্টিটিউশন গবেষণা বিশ্লেষক ক্যারল গ্রাহামের মতে, এই জাতীয় অঞ্চলে বসবাসকারী অনেক আমেরিকান ‘ভবিষ্যতের জন্য কোন আশাবাদ দেখেন না’।

অর্থনৈতিক পরিস্থিতি এখন তুলনামূলকভাবে স্থিতিশীল, এখন যদি এটি ঘটে থাকে তাহলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী অর্থনৈতিক মন্দার সময় আত্মহত্যার হারের কী হতে পারে? কারও আত্মহত্যা করার পক্ষে সমর্থক কোন কারণ নেই, তবে দুর্ভাগ্যক্রমে পরবর্তী মন্দা চলাকালীন আমরা আত্মহত্যার হার যথেষ্ট পরিমাণে বাড়তে দেখি।
গ্রামীণ অঞ্চলে আত্মহত্যার হার বেশি হওয়ার আরেকটি কারণ হ’ল স্বাস্থ্য বীমার অভাব।

সর্বশেষে তবে অবশ্যই কম নয়, স্বাস্থ্য বীমা কভারেজের অভাব গ্রামীণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাউন্টিগুলিতে ক্রমবর্ধমান আত্মহত্যার হারের সাথে জড়িত। বিশেষত, গবেষকরা পর্যবেক্ষণ করেছেন যে, স্বাস্থ্য বীমা কভারেজ নেই এমন, কাউন্টির লোকেদের মধ্যে আত্মহত্যার হার’। সূত্র : নিউজ রিপাবলিক।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

পরিচালনা পর্ষদ

সম্পাদক ও প্রকাশক:
Admin
© ২০২০ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত.মুসলিম ভয়েস কোপেরেটিভ লি.
Design By NooR IT
themesba-lates1749691102