শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:০০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কাশ্মীরের জামা মসজিদ বন্ধ করে জুমার নামায পড়তে দেয়নি ভারত জুমার আলোচনায় খতিবদের ডেঙ্গু-গুজব-বন্যা নিয়ে বক্তব্য রাখার আহ্বান ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর মসজিদে গুলি করতে গিয়ে উল্টো ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন সাবেক মার্কিন সেনা! ইন্টারনেট সেবা নিতে চাইলে কোরআনে শপথ নিতে হবে মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে আয়ের একমাত্র অবলম্বন ভ্যানটি চুরি হয় বিমানবন্দরে লাগেজ হারিয়ে গেলে ফিরে পাওয়ার উপায় আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির সাথে হিজরী সন সম্পৃক্ত: চরমোনাই পীর The story of success -Ashraf Ali Sohan চিত্রনায়িকা পরী মণি ও (এডিসি) সাকলায়েনের নতুন ভিডিও ফাঁস, দেখুন গোপালপুরে মসজিদে হামলায় বৃদ্ধ নিহত, সড়ক অবরাধ, আটক দুই কোম্পানীগঞ্জে দিনদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ ৪ দিন পরও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ বানিয়াচংয়ে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের আবিস্কার নিয়ে বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত খুলনায় স্কুল ছাত্রীর নগ্ন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ায় যুবক গ্রেফতার

মিয়ানমারে ৬ লাখ রোহিঙ্গা গণহত্যার ঝুঁকিতে – ইয়াংঘি : Muslimvoice24.com

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৫ অক্টোবর, ২০১৯
  • ২৫৬ Time View

মুসলিম ভয়েস ডেস্ক : নিরাপত্তা বাহিনীর নিপীড়নের মুখেও মিয়ানমারে থেকে যাওয়া প্রায় ছয় লাখ রোহিঙ্গা গণহত্যার গুরুতর ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানিয়েছেন জাতিসঙ্ঘের তথ্যানুসন্ধান মিশনের প্রধান মারজুক দারুসম্যান।

তিনি বলেছেন, অব্যাহত বৈষম্য ও বিচ্ছিন্নকরণ প্রক্রিয়া, চলাচলের নিষেধাজ্ঞা, নিরাপত্তাহীনতা এবং ভূমি, চাকরি, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার অভাবে রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। জাতিসঙ্ঘ সাধারণ অধিবেশনে দেয়া বক্তব্যে দারুসম্যান এ সব কথা জানান।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো গণহত্যা অব্যাহত রাখতে রাষ্ট্রের ইচ্ছার শক্তিশালী আলামত পাওয়া যাচ্ছে। আবারো গণহত্যা সংঘটিত হওয়ার গুরুতর ঝুঁকিতে রয়েছে রাখাইন। আন্তর্জাতিক সনদের বাধ্যবাধকতা অনুযায়ী গণহত্যা প্রতিরোধ, তদন্ত ও অপরাধীদের শাস্তির আওতায় আনতে কার্যকর আইন প্রণয়নে মিয়ানমার ব্যর্থ হচ্ছে।

খবরে বলা হয়, এ বছর সেপ্টেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহে জাতিসংঘের তদন্তকারীরা তাদের অনুসন্ধান শেষে জানিয়েছিলেন, এখনও রাখাইনে থেকে যাওয়া রোহিঙ্গারা গণহত্যার ভয়াবহ ঝুঁকিতে রয়েছে। রোহিঙ্গা বিরোধী অভিযানে খুন, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগের দায়ে সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাংসহ দেশটির শীর্ষ জেনারেলদের বিচারের মুখোমুখি করার সুপারিশ করেছিলেন তারা। এক মাস পরে এসে ওই তদন্তকারীরা বলছেন, সেখানকার পরিস্থিতির কোনও উন্নতি হয়নি। মিয়ানমারের সেনা-প্রতিষ্ঠান ও এর কমান্ডারদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা তাই অপরিহার্য। পরিস্থিতির উন্নয়নে মিশনের পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসারও আহ্বান জানানো হয়েছে।

১৬ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত জাতিসংঘের অনুসন্ধানী দলের সবশেষ প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, রাখাইনে এখনও ছয় লাখ রোহিঙ্গা থেকে গেছে। তারা শোচনীয় পরিস্থিতিতে বসবাস করছে।

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও অন্য সরকারি কর্তৃপক্ষের হাতে হত্যা, ধর্ষণ, সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, নির্যাতন, বাস্তুচ্যুতি ও অন্যান্য মারাত্মক মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য যেসব অনুষঙ্গ কাজ করেছিল সেগুলো বহাল থাকার প্রসঙ্গ তুলে ধরে নিধনযজ্ঞের দায়ে মিয়ানমারকে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) প্রেরণ বা রুয়ান্ডার মতো ট্রাইব্যুনাল গঠনের আহ্বান জানিয়েছিলেন তদন্তকারীরা।

বিভিন্ন দেশের সরকার ও কোম্পানিগুলোকে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে সম্পর্ক সীমিত করার আহ্বান জানানো হয়েছিল ওই প্রতিবেদনে। বুধবার মিয়ানমারে নিযুক্ত জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধে ইয়াংঘি লি জানিয়েছেন, এখনও পরিস্থিতির কোনও বদল ঘটেনি। বরং গতমাসে রাখাইন ত্যাগ করার কারণে ৩০ হাজার রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অজুহাতে মামলা করা হয়েছে।

লি বলেন, ‘অন্তত আট শিশুকে আটককেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে যার মধ্যে একজনের বয়স মাত্র পাঁচ বছর। দেশের গণতান্ত্রিক পরিসরকে সংকুচিত করার স্বার্থে ব্যবহৃত নিপীড়নমূলক আইনগুলো সংশোধন করার বদলে মিয়ানমার সরকার সমালোচকদের বিরুদ্ধে এগুলো ব্যবহার করছে।

বুধবার বিকেলে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে লি আরও বলেন, যারা মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরোধিতা করছেন সেসব আন্দোলনকারী, অ্যাক্টিভিস্ট ও সাংবাদিকদের শাস্তি দিচ্ছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। আর এতে গণতন্ত্র বিনষ্ট হচ্ছে। [সে কারণে] মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও এর কমান্ডারদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা অপরিহার্য।

তাদের অনুসন্ধানে জানা যায়, মিয়ানমারে এখনও কয়েক লাখ রোহিঙ্গা থেকে গেছে, যাদের পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ। বুধবারের সংবাদ সম্মেলনে লি বলেন, ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন পুরো পরিস্থিতি বিবেচনা করে মিয়ানমারকে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে তোলার আহ্বান জানিয়েছে। এই পরিস্থিতির অবসান প্রয়োজন। তাদের ওপর নিপীড়ন বন্ধ করতে হবে।

মঙ্গলবার মিশনের প্রধান মারজুকি দারুসম্যান বলেন, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যার শক্ত আলামাত পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, জেনোসাইড কনভেনশনের আওতায় পড়ে যাচ্ছে মিয়ানমার। সে অনুযায়ী গণহত্যার ব্যাপারে তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে। জাতিসংঘের মিশনের হিসেব অনুযায়ী, রাখাইনে ৬০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা বাস্তুচ্যুত রয়েছে। লি মনে করছেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীরা রাখাইনে নিরাপদভাবে ফিরে আসতে পারবে না। এখনও সেই পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। রয়টার্স, এসএএম,ইনকিলাব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

পরিচালনা পর্ষদ

সম্পাদক ও প্রকাশক:
Admin
© ২০২০ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত.মুসলিম ভয়েস কোপেরেটিভ লি.
Design By NooR IT
themesba-lates1749691102