শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:২২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কাশ্মীরের জামা মসজিদ বন্ধ করে জুমার নামায পড়তে দেয়নি ভারত জুমার আলোচনায় খতিবদের ডেঙ্গু-গুজব-বন্যা নিয়ে বক্তব্য রাখার আহ্বান ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর মসজিদে গুলি করতে গিয়ে উল্টো ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন সাবেক মার্কিন সেনা! ইন্টারনেট সেবা নিতে চাইলে কোরআনে শপথ নিতে হবে মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে আয়ের একমাত্র অবলম্বন ভ্যানটি চুরি হয় বিমানবন্দরে লাগেজ হারিয়ে গেলে ফিরে পাওয়ার উপায় আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির সাথে হিজরী সন সম্পৃক্ত: চরমোনাই পীর The story of success -Ashraf Ali Sohan চিত্রনায়িকা পরী মণি ও (এডিসি) সাকলায়েনের নতুন ভিডিও ফাঁস, দেখুন গোপালপুরে মসজিদে হামলায় বৃদ্ধ নিহত, সড়ক অবরাধ, আটক দুই কোম্পানীগঞ্জে দিনদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ ৪ দিন পরও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ বানিয়াচংয়ে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের আবিস্কার নিয়ে বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত খুলনায় স্কুল ছাত্রীর নগ্ন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ায় যুবক গ্রেফতার

বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীদের নেকাব পরায় আদালতের নিষেধাজ্ঞার রায় চূড়ান্ত

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩০ জানুয়ারী, ২০২০
  • ২৬১ Time View

মুসলিম ভয়েস ডেস্ক | নারীদের ফরজ বিধান নেকাবের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন মিসরের সর্বোচ্চ আদালত। এ নিষেধাজ্ঞার ফলে মিসরসহ বিশ্বব্যাপী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয়েছে ব্যাপক সমালোচনার ঝড়। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার (আরবি) এক প্রতিবেদনে তা প্রকাশ করে।

শিক্ষকাদের নেকাব পরার নিষেধাজ্ঞা জারি করে মিসরের সর্বোচ্চ অদালত। গত শনিবার (৪ জানুয়ারি) মিসরের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারক এ আপিল নিষ্পত্তির রায় ঘোষণা করেন। এরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিশ্বব্যাপী শুরু হয় সমালোচনার ঝড় ও প্রতিবাদ।

আদালতের যুক্তি উন্থাপন করেন, নেকাব শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীদের মধ্যকার সম্পর্ক ও যোগাযোগের বিষয়টি সহজ ও ফলপ্রসূ হওয়ার অন্তরায়। এ যুক্তির আলোকে নিষেধাজ্ঞা জারি করে আদালত। আদালত আরও জানায় নেকাবের নিষেধাজ্ঞা শুধুমাত্র শিক্ষিকাদের জন্য, মেয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য নয়।

এরআগে ২০১৬ সালে মিসরের সর্বোচ্চ অদালতে কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়ের নিকাব পরা নারী শিক্ষিকারা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনের জারি করা নেকাব নিষেধাজ্ঞার আদেশ বাতিলের আপিল করেন। শিক্ষিকাদের করা আপিল মামলা নিষ্পত্তিতেও নেকাব পরার উপর নিষেধাজ্ঞা বহাল রেখে আদালত চূড়ান্ত রায় ঘোষণা করেন।

নেকাব পরা নারী শিক্ষিকাদের আইনজীবী আহমাদ মেহরান বলেন, ‘কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ নারী ২০১৬ সালে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দেয়া আদেশের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করেছিল। শনিবার দেশটির সর্বোচ্চ আদালত নিষেধাজ্ঞা বহাল রেখেই রায় প্রদান করেন। এ রায়ে সাধারণ জনগণের কোনো সমর্থন নেই। তারপরও জনসম্মতির বাইরে গিয়ে সর্বোচ্চ আদালত এ রায় দেয়। যার কোনো কারণ আমাদের জানা নেই।

উল্লেখ্য, কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য জাবির নেসার ২০১৩ সালের আগে থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষিকাদের নেকাব পরায় নিষেধাজ্ঞার প্রচেষ্টা চালিয়ে আসছিলো। কিন্তু ইসলামপন্থী মুরসি সরকার ক্ষমতায় আসলে কিছুটা পিছু হটেন জাবির নেসার।

২০১৩ সালে মুহাম্মদ মুরসি ক্ষমতাচ্যুত হলে ওই উপাচার্য দুই বছরের মাথায় ২০১৫ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষিকাদের নেকাব পরায় নিষেধাজ্ঞা আইন বাস্তবায়নে সক্রিয় হয়ে ওঠেন এবং প্রশাসনিকভাবে নেকাবের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

যেসব শিক্ষিকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নেকাব পরেন, তারা প্রশাসনের এ সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেন। কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়ে ৮০ জন নারী শিক্ষকতার পেশায় নিযুক্ত। যার নিয়মিত নেকাব পরেন।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে ইসলামিক স্কলার ও বিশেষজ্ঞরা মিসরের সর্বোচ্চ আদালতের এই রায়কে গভীর ষড়যন্ত্র আখ্যা দিয়েছেন। মিসরকে বিধর্মী শক্তির ষড়যন্ত্রের অন্যতম কেন্দ্রবিন্দু উল্লেখ করেছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

পরিচালনা পর্ষদ

সম্পাদক ও প্রকাশক:
Admin
© ২০২০ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত.মুসলিম ভয়েস কোপেরেটিভ লি.
Design By NooR IT
themesba-lates1749691102