রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কাশ্মীরের জামা মসজিদ বন্ধ করে জুমার নামায পড়তে দেয়নি ভারত জুমার আলোচনায় খতিবদের ডেঙ্গু-গুজব-বন্যা নিয়ে বক্তব্য রাখার আহ্বান ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর মসজিদে গুলি করতে গিয়ে উল্টো ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন সাবেক মার্কিন সেনা! ইন্টারনেট সেবা নিতে চাইলে কোরআনে শপথ নিতে হবে মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে আয়ের একমাত্র অবলম্বন ভ্যানটি চুরি হয় বিমানবন্দরে লাগেজ হারিয়ে গেলে ফিরে পাওয়ার উপায় আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির সাথে হিজরী সন সম্পৃক্ত: চরমোনাই পীর The story of success -Ashraf Ali Sohan চিত্রনায়িকা পরী মণি ও (এডিসি) সাকলায়েনের নতুন ভিডিও ফাঁস, দেখুন গোপালপুরে মসজিদে হামলায় বৃদ্ধ নিহত, সড়ক অবরাধ, আটক দুই কোম্পানীগঞ্জে দিনদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ ৪ দিন পরও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ বানিয়াচংয়ে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের আবিস্কার নিয়ে বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত খুলনায় স্কুল ছাত্রীর নগ্ন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ায় যুবক গ্রেফতার

চা বিক্রেতার হাতে দেশ তুলে দিলে সে তো ঢেলে দিবেই : মাসুদ সাঈদী

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ১২৩১ Time View

ভারতের দিল্লিতে মুসলিমদের উপর ভয়ংকর নির্যাতন নিপিড়ন চলছে, এই পর্যন্ত দাঙ্গায় ৩৫ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে প্রতিবাদের ঝড়।

এই বিষয় নিজের ফেইসবুক পেজে, প্রখ্যাত আলেম ও আমৃত্যু কারাদণ্ড প্রাপ্ত জামায়াত নেতা মাওলানা দেলোয়ার হোসেনের সাঈদীর মেঝ ছেলে জনাব মাসুদ সাঈদী লেখেন, চা বিক্রেতার হাতে দেশ তুলে দিলে সে তো ঢেলে দেবেই,

এর আগে আরো একটি স্ট্যাটাস এ তিনি লেখেন…

দিল্লিতে নির্যাতিত মুসলমানরা কি শিয়া? না সুন্নি?
আহলে হাদিস? হানাফি? নাকি ওহাবি?
আলিয়া? নাকি কওমী?

কি তাদের পরিচয়?
কোন পরিচয়ের জন্য তারা মার খাচ্ছে?

আমরা আর কবে বুঝবো? কবে আমাদের হুঁশ হবে?
আমাদের ঘুম ভাংবে আর কবে ??

দিল্লি জ্বলছে ..

কুতুবুদ্দিন আইবেকের দিল্লি জ্বলছে। যে দিল্লিতে একদিন প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল কুওয়াতুল ইসলাম মসজিদ, সেই দিল্লিতে আজ আগুন ও কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গেছে অশোকনগরের মসজিদ। পুড়ে গেছে মসজিদের সদর দরজা। মাটিতে পড়ে আছে ছিন্নভিন্ন মুসহাফ। কুতুব মিনারের শহরে আজ মসজিদের মিনারে উড়ছে হনুমানের পতাকা।

দিল্লি জ্বলছে ..

দিল্লিকে লোকে সম্মান করে বলতো হজরত দিল্লি। আমির খসরু এই শহরকে বলতেন জান্নাতে আদন। ইসামি এই শহরের মাটিকে বলেছিলেন, কিবরিয়্যাতে আহমার। হজরত দিল্লির উপর বারবার আঘাত এসেছে। তৈমুর লঙ ও নাদের শাহের আক্রমন, ইংরেজদের বর্বরতা বারবার হজরত দিল্লিকে পরিণত করেছিল মরহুম দিল্লিতে। দিল্লিকে বলা হত হিন্দুস্তানের দিল। হিন্দুস্তানের দিল আজ রক্তাক্ত, ক্ষত-বিক্ষত।

দিল্লি জ্বলছে .

ইসলামের সভ্যতা-সংস্কৃতির ইতিহাসে দিল্লির অবস্থান বাগদাদ, গ্রানাডা, কর্ডোভা ও ফুসতাতের পাশেই। ছয়শো বছর ধরে এই শহরে বিকশিত হয়েছিল ইসলামি সভ্যতা। ত্রয়োদশ শতকে যখন তাতার ঝড়ে লন্ডভন্ড মধ্য এশিয়ার মুসলমানরা, দিল্লি ছিল তাদের নিরাপদ আশ্রয়। এক সময় যে শহরের মুসলমানরা মজলুমদের আশ্রয় দিয়েছিল, আজ তারাই মজলুম অন্যের হাতে। যাদের পূর্বপুরুষ তিলে তিলে গড়ে তুলেছিলেন দিল্লিকে, আজ তাদের রক্ত ঝরছে দিল্লির মাটিতে।

দিল্লি জ্বলছে ..

মুহাম্মদ বিন তুঘলকের শাসনামলে এই শহরে ছিল এক হাজার মাদরাসা ও দুই হাজার খানকাহ। দিল্লির অদূরে গিয়াসপুরে ছিল নিজামুদ্দিন আউলিয়ার খানকাহ। সুলতান গিয়াসুদ্দিন তুঘলক ক্ষিপ্ত ছিলেন নিজামুদ্দিন আউলিয়ার উপর। লখনৌতি অভিযান শেষে ফেরার পথে বার্তা পাঠিয়েছিলেন, আমি দিল্লি ফেরার আগেই শহর ছাড়া করো নিজামুদ্দিনকে। শুনে মুচকি হেসেছিলেন নিজামুদ্দিন আউলিয়া। ধীর কন্ঠে বলেছিলেন, হুনুজ দিহলি দুরাস্ত (দিল্লি এখনো দূরে আছে)। গিয়াসুদ্দিন তুঘলকের দিল্লি ফেরা হয়নি। শহর থেকে একটু দূরে থাকতেই মারা গিয়েছিলেন তিনি। রক্তাক্ত দিল্লিকে নিয়ে হিন্দুত্ববাদী শক্তি যে স্বপ্ন দেখছে সে স্বপ্ন পূরণ হবে না, ইনশাআল্লাহ। তাদের উদ্দেশ্যে আমাদের বার্তা, হুনুজ দিহলি দুরাস্ত।

দিল্লি জ্বলছে ..

দিল্লির রাস্তায় পিটিয়ে মারা হয়েছে মুসলমানদের। পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে মুসলমানদের দোকানপাট। অস্ত্রধারীরা টহল দিচ্ছে দিল্লির অলিগলিতে। দিল্লির মুসলমানরা পার করছে এক দুঃসময়। সেক্যুলারিজমের যে ভারতীয় মডেলকে এতদিন প্রচার করা হত ভারতীয় মুসলমানদের রক্ষাকবচ বলে, মুখ থুবড়ে পড়েছে সেই প্রকল্প। যেই ধর্মগুরুরা মুহাম্মদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এবং রামের শিক্ষাকে এক করে দেখাতেন, প্রচার করতেন উদারতার বানী, তারাও আজ নীরব। ‘ওয়াহদাতুল আদইয়ানে’র ফেরিওয়ালারাও দিতে পারেননি কোনো সমাধান। ভারতীয় মুসলমানদের জন্য এটি আল্লাহর পক্ষ থেকে ইশারা। তাদের সকল সমস্যার সমাধান রয়েছে শরিয়াহর দিকে ফিরে আসার মধ্যেই। এর বাইরে কোনো মতবাদ তাদের শান্তি-স্বস্তি দিবে না। সেক্যুলারিজমের লোভনীয় ফানুস কিংবা আন্তধর্মীয় ভ্রাতৃত্বের ফাঁকা বুলি মুসলমানদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে না। ঈমান ও কুফরের এই দ্বন্দ্বে মাঝামাঝি থাকার সুযোগ নেই। শক্তির জবাব শক্তি দিয়েই দিতে হবে। ইটের জবাব পাথর দিয়ে। আল কওলু কওলুস সওয়ারিম।

দিল্লি জ্বলছে ..

দিল্লি আগুনে পুড়ছে। তবে মুসলমানরা হারিয়ে যাবে না। তারা ছাইয়ের স্তুপ থেকে আবার মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। বি ইযনিল্লাহ। শিহাবুদ্দিন ঘুরীর আজমীর জয়ের প্রাক্কালে পৃথ্বীরাজকে লক্ষ্য করে মঈনুদ্দিন চিশতি আজমেরি বলেছিলেন, মান তুরা এয় পিত্থুরা জিন্দা গেরেফতাম, বদস্তে লশকরে ইসলাম (হে পৃথ্বীরাজ তোমাকে আমি জীবিত বন্দি করে মুসলিম সেনাবাহিনীর হাতে তুলে দিলাম)। হিন্দুত্ববাদী শক্তি যে খেলা শুরু করেছে তাঁর সমাপ্তি হবে তাদেরকে লশকরে ইসলামের হাতে তুলে দেয়ার মাধ্যমেই। বি ইযনিল্লাহ। শীঘ্রই কুতুব মিনারের চূড়া থেকে আবারও লশকরে ইসলামের তাকবীর উচ্চারিত হবে। সে তাকবীর ছড়িয়ে পড়বে রাজস্থান থেকে হায়দারাবাদ, ঝাড়খন্ড থেকে আহমেদাবাদ। দিল্লির জামে মসজিদে শীঘ্রই খুতবা দিবেন শাহ আবদুল আজিজের উত্তরসূরীরা। ফিকহের কিতাবের ধূসর অধ্যায়গুলো বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে খুব শীঘ্রই। – সংগ্রিহীত।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

পরিচালনা পর্ষদ

সম্পাদক ও প্রকাশক:
Admin
© ২০২০ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত.মুসলিম ভয়েস কোপেরেটিভ লি.
Design By NooR IT
themesba-lates1749691102